আগামী নভেম্বরে চতুর্থ গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ- এনটিআরসিএ

আগামী নভেম্বরে চতুর্থ গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ- এনটিআরসিএ

বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) বিভিন্ন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে প্রায় ৭০,০০০ শিক্ষক নিয়োগের জন্য নভেম্বরে চতুর্থ গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে চায়। অক্টোবরে এই গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পরিকল্পনা থাকলেও শিক্ষা বিভাগ শূন্যপদের যাচাই-বাছাই সম্পন্ন করতে না পারায় পরিকল্পনাটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। 16 অক্টোবরের মধ্যে তথ্য যাচাই করে এনটিআরসিএতে ফেরত দেওয়ার কথা থাকলেও বিভাগগুলিকে 20 অক্টোবর পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছে।

শূন্যপদের তথ্য যাচাইয়ের পর এমপিও শূন্য পদে শিক্ষক নিয়োগের জন্য চতুর্থ গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হতে পারে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদনের পর নভেম্বরে ড. NTRCA এর চেয়ারম্যান মো. এমনটাই জানিয়েছেন এনামুল কাদের খান আমাদের বার্তা প্রতিদিনকে।

বিভাগগুলো শূন্যপদের তথ্য যাচাই-বাছাই শুরু করেছে বলে জানা গেছে। মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে শূন্যপদের তথ্য যাচাইয়ের জন্য একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এদিকে নীতিমালা অনুযায়ী মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের আঞ্চলিক পরিচালক ও উপ-পরিচালকদের শূন্যপদের তথ্য যাচাইয়ের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এনটিআরসিএর চেয়ারম্যান গতকাল রোববার দৈনিক আমাদের বার্তাকে বলেন, বিভাগগুলো আমাদের কাছে সময় চেয়েছে। অতএব, শূন্যপদের তথ্য যাচাইয়ের সময় 20 অক্টোবর পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এর মধ্যে, বিভাগগুলি যাচাইকরণ সম্পন্ন করে পাঠালে, আমরা পরিকল্পনা অনুযায়ী কাজ চালিয়ে যেতে পারি।

চতুর্থ গণবিজ্ঞপ্তি কবে প্রকাশ করা হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যাচাইকৃত শূন্য পদের তথ্য পাওয়ার পর গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিতে হবে। আমরা অক্টোবরের শেষ নাগাদ গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে চাই। সেটা সম্ভব না হলে নভেম্বরের শুরুতে করতে পারব বলে আশা করছি।

কতজন শিক্ষক শূন্যপদের জন্য বিজ্ঞাপন দেওয়া হচ্ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা ৭০ হাজারের বেশি শূন্য পদের তথ্য পেয়েছি।

যাচাইয়ের সময় কিছু খালি তথ্য অনুপস্থিত হতে পারে। আবার অনেক প্রতিষ্ঠানই এখন বলছে মূল শূন্যপদের তথ্য ভুল ছিল। তাদেরও অপসারণ করা উচিত। চেয়ারম্যান এনামুল কাদের খান আরও বলেন, আশা করছি এ বছর এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের পদে প্রার্থী সুপারিশ করা সম্ভব হবে।

চতুর্থ গণবিজ্ঞপ্তি NTRCA

চতুর্থ ধাপে এন্ট্রি লেভেলের (সহকারী শিক্ষক, প্রভাষক) শিক্ষক নিয়োগের জন্য এনটিআরসিএ অনলাইনে ৭০ হাজারের বেশি শূন্যপদের তথ্য সংগ্রহ করেছে বলে জানা গেছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে পাঠানো তথ্য মাঠ পর্যায়ের শিক্ষা কর্মকর্তাদের মাধ্যমে যাচাই করা হয়েছে। জটিলতা এড়াতে শিক্ষা বিভাগগুলোকে শূন্যপদের তথ্য যাচাই করতে বলা হয়েছে।

About adminbd

John Romeo is a content writer.

View all posts by adminbd →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *