প্রাথমিকে শিক্ষক নিয়োগ: ফলাফলের পুনঃমূল্যায়নের জন্য ৫ জন প্রার্থী রিট

প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার ফলাফল পুনঃমূল্যায়ন চেয়ে রিট আবেদন করেছেন কুষ্টিয়া জেলার পাঁচ প্রার্থী। গত ১৪ জুন এ রিট দায়ের করা হয়।

রিট আবেদনে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও অধিদপ্তরের পরিচালককে বিবাদী করা হয়েছে। রিট আবেদনের শুনানি শেষে বিচারপতি জাফর আহমেদ ও বিচারপতি মো. আখতারুজ্জামান আসামিদের বিরুদ্ধে রুল জারি করেছেন। গত ৯ জুন প্রকাশিত লিখিত পরীক্ষার ফল কেন অবৈধ হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে। কেন ফলাফল পুনঃমূল্যায়ন করা হবে না, তাও জানতে চাওয়া হয়েছে আবেদনকারীদের। রুলের চার সপ্তাহের মধ্যে বিবাদীদের রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

http://ipemis.com/2022/06/25/%e0%a6%8f%e0%a6%a8%e0%a6%9f%e0%a6%bf%e0%a6%86%e0%a6%b0%e0%a6%b8%e0%a6%bf%e0%a6%8f-%e0%a6%b6%e0%a7%82%e0%a6%a8%e0%a7%8d%e0%a6%af-%e0%a6%aa%e0%a6%a6%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%9a%e0%a6%be%e0%a6%b9/

রিট আবেদনকারীরা হলেন- মোঃ তরিকুল ইসলাম, মোঃ রশিদুল ইসলাম, তানজিন জাহান, আলী রাজ ও মোছা. রুমা খাতুন। এর আগে গত ১২ জুন প্রাথমিক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষার ফল পুনঃমূল্যায়নের জন্য প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বরাবর আবেদন করেন রিটকারীরা। রিট আবেদনে বলা হয়েছে, আবেদনের নিষ্পত্তি না হওয়ায় তারা আদালতের শরণাপন্ন হয়েছেন।

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ২০২২

মহাপরিচালক বরাবর করা আবেদনে বলা হয়েছে, দ্বিতীয় পর্যায়ে অনুষ্ঠিত লিখিত পরীক্ষায় ওই পরীক্ষার্থীরা ভালো পরীক্ষা দিয়েছে। তাদের পরিচিত অনেকেই তুলনামূলক খারাপ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। প্রকাশিত ফলাফল ভুল হওয়ার আশঙ্কায় তারা ফলাফল পুনঃমূল্যায়ন চান। এদিকে দ্বিতীয় পর্বের পরীক্ষার ফল পুনঃমূল্যায়নের জন্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছেন ৪৮ জন প্রার্থী।

আবেদনকারীরা বলছেন যে তারা তাদের আশেপাশের অনেকের চেয়েও ভালো পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারেননি। রেজাল্ট শীট দেখে মনে হচ্ছে একের পর এক একই সিরিয়ালে পাশ করেছে যা সন্দেহ। এ অবস্থায় তারা ফল পুনঃমূল্যায়নের আবেদন করেছেন।

About adminbd

John Romeo is a content writer.

View all posts by adminbd →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *